নাসিরনগরে মাজার পরিচালনা কমিটি গঠন

নাসিরনগর, 2 February 2024, 351 Views,

চলারপথে রিপোর্ট :
ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার পূর্বভাগ ইউনিয়নের ভূবন আব্দুল্লাহ নগর সংলগ্ন বড়ধলিয়া হযরত শাহ্ সূফী আব্দুল্লাহ শাহ্(রহ.) মাজারের পূর্বের পরিচালনা কমিটির মেয়াদ উর্ত্তীণ হওয়ায় স্থানীয় নেতৃবৃন্দের পরামর্শ ক্রমে নতুন পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়েছে।

১ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার রাতে পরিচালনা কমিটি গঠনকল্পে এক সভায় ২৩ জনকে উপদেষ্টা করে মাজার পরিচালনা কার্যকরী কমিটিতে মো: নিয়ামত উল্লাহ নিয়ামকে সভাপতি,পূর্বভাগ ইউপি চেয়ারম্যান মো: আক্তার মিয়াকে সিনিয়র সভাপতি,শামছুল কিবরিয়া হাকিম রাজা,সফিকুর রহমান,আলাউদ্দিন, আমিনুর রহমান ইয়ামিন, খাইরুজ্জামান ফারুককে সহ-সভাপতি ও নজরুল ইসলাম ভূইয়াকে সাধারণ সম্পাদক ও দূর্বাজ মিয়া,গোলাম মোহাম্মদ সেলিমকে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, অ্যাডভোকেট আশিকুর রহমানকে কোষাধ্যক্ষ,অলি মেম্বার,আমির হোসেন সহ-কোষাধ্যক্ষ,এমরানুল বারীকে সাংগঠনিক সম্পাদক,শাহজাহান চকদার,মুহিবুর রহমান(মুরাদ),আবদুস ছালামকে সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক,মিজানুর রহমান রিপনকে দপ্তর সম্পাদক,জুনায়েদ রহমান,আহসান হাবীব(শতদল),রুকন উদ্দিনকে সহ-দপ্তর সম্পাদক এবং শাহজাহানকে প্রচার সম্পাদক করে শাহ্ সূফী আব্দুল্লাহ শাহ (রহ.) মাজারের পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়।

এ সময় কমিটির নেতৃবৃন্দসহ আশেকান জাকেরান ও ভক্তবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

মুগ্ধতা ছড়িয়েছে ভারতের আবৃত্তি সংস্থা শ্রুতি

চলারপথে রিপোর্ট : ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের আগরতলার বিশিষ্ট আবৃত্তি সংস্থা Read more

নবীনগরে তিন শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

চলারপথে রিপোর্ট : ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর উপজেলার জিনোদপুর ইউনিয়নের বাঙ্গরা Read more

আখাউড়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে একজন নিহত

চলারপথে রিপোর্ট : ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আখাউড়া বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে আদর আলী Read more

কোটা বিরোধী আন্দোলনের নামে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা…

চলারপথে রিপোর্ট : কোটা বিরোধী আন্দোলনের নামে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও Read more

বাঞ্ছারামপুরে বৃত্তির সনদ ও অর্থ প্রদান

চলারপথে রিপোর্ট : ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বাঞ্ছারামপুরে বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন এন্ড প্রি-ক্যাডেট Read more
ফাইল ছবি

রোকেয়া হলের মেয়েদের মুখে ‘রাজাকার’ স্লোগান,…

অনলাইন ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নই Read more

কোপা চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা

অনলাইন ডেস্ক : কলম্বিয়াকে হারিয়ে ১৬ তম শিরোপা ঘরে তুলেছে Read more
ফাইল ছবি

৩০০০ বাংলাদেশি কর্মী নেবে ইউরোপের চার…

অনলাইন ডেস্ক : ইউরোপীয় ইউনিয়নের চার দেশ ইতালি, জার্মানি, গ্রিস Read more

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচার…

চলারপথে রিপোর্ট : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা প্রশাসন ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের Read more

ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেড ক্রিসেন্ট ইউনিট কার্যনির্বাহী কমিটির…

চলারপথে রিপোর্ট : ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেড ক্রিসেন্ট ইউনিট কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচন Read more

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের নতুন কমিটির…

চলারপথে রিপোর্ট : ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডের পাইকপাড়া সামাজিক Read more

বিজয়নগরে সালিসি সভায় নারী নির্যাতন :…

চলারপথে রিপোর্ট : ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিজয়নগরে চুরির অপবাদ দিয়ে সালিশ Read more

১০ বছরের শিকলবন্দি জীবন রবিউলের

নাসিরনগর, 26 December 2022, 1049 Views,

চিকিৎসায় থালাবাসনও বিক্রি করে দিয়েছেন পিতা খলিল

স্টাফ রিপোর্টার:
পেশায় একজন রিকশাচালক খলিল মিয়া। নিজের সহায়-সম্পত্তি বলতে কিছু নেই। পরিবার নিয়ে থাকেন আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘরে। ছেলের জীবনে ঘটে যাওয়া একটি দুর্ঘটনা তাকে নিঃস্ব করে দিয়েছে। ১০টি বছর সন্তানকে শিকলবন্দি করে রাখতে হচ্ছে খলিল মিয়াকে। ছেলেকে এ থেকে পরিত্রাণ দিতে তার প্রয়োজন প্রায় ১২ লাখ টাকার। অর্থাভাবে থেমে আছে ছেলের চিকিৎসা। খলিল মিয়ার গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলার ভলাকুট ইউনিয়নের ভলাকুট গ্রামে। বর্তমানে বসবাস করেন সরকারি আশ্রয়ণ প্রকল্পে ঘরে। স্ত্রী ও দুই ছেলে সন্তান নিয়ে বসবাস করেন তিনি।
সম্প্রতি একমাত্র মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন গ্রামবাসী থেকে চাঁদা তুলে। ছোট ছেলে স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ে। বড় ছেলে রবিউলকে (১৮) শিকলবন্দি করে ঘরে বেঁধে রাখতে হয়। পাশাপাশি নিয়মিত চিকিৎসাও করাতে হয়। তবে রিকশা চালিয়ে আয় করা সামান্য অর্থে পরিবারের খরচ ও বড় ছেলে রবিউলের চিকিৎসা ব্যয় চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন খলিল মিয়া।
খলিল মিয়া জানান, দুই ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে তার সুখেই দিন কাটছিল। গ্রামে বাড়িতে সামান্য জমিও ছিল। জীবিকার তাগিদে ঢাকায় রিকশা চালিয়ে বসবাস করতেন। বড় ছেলে রবিউল সেখানে স্কুলে পড়াশোনা করতো। তৃতীয় শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় সে একদিন স্কুল থেকে সহপাঠীদের সঙ্গে বাসায় ফিরছিল। পথে একটি নির্মাণাধীন ভবনের নিচে খেলছিল তারা। খেলার একপর্যায়ে দেওয়ালের সঙ্গে ধাক্কা লেগে রবিউলের মাথার পেছনের দিকে রডের অংশ ঢুকে যায়। দ্রুত তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করানো হয়।

চিকিৎসার পর স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করতে থাকে রবিউল। কিন্তু এই ঘটনার পাঁচ মাস পর সে অস্বাভাবিক আচরণ শুরু করে, যা ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে। রবিউলকে আরও উন্নত চিকিৎসা করানো হয়। তবে ছেলের চিকিৎসা খরচ মেটাতে গিয়ে বাড়িঘর ও শেষ সম্বল সামান্য জায়গাটুকুও বিক্রি করে দিতে হয়েছে খলিল মিয়াকে। এমনকী আর কিছু না থাকায় ঘরের থালাবাসনও বিক্রি করে দিতে হয়েছে।
খলিল মিয়া বলেন, ‘চিকিৎসকরা বলেছেন ভারতে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করালে ভালো হয়ে যাবে রবিউল। এজন্য প্রয়োজন প্রায় ১২ লাখ টাকা। যেখানে রিকশা চালিয়ে নুন আনতে পান্তা ফুরায়, সেখানে কোথায় পাবো এত টাকা!’
ভলাকুট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রুবেল মিয়া বলেন, ‘খলিল মিয়া ঢাকা থেকে নিজ গ্রামে ফিরে আসবেন বলে সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু তার কোনো সহায়-সম্পদ বা মাথাগোঁজার মতো জায়গা ছিল না। বিষয়টি আমাকে জানালে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নিতে সহায়তা করি। কিন্তু খলিল মিয়া ছিলেন সিলেটের ভোটার। আমি নিজ উদ্যোগে তাকে ভলাকুট ইউনিয়নের ভোটার করি। তারপর আশ্রয়ণ প্রকল্পে তাকে ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়। পরবর্তী সময়ে সে জানায়, তার ছেলে প্রতিবন্ধী। আমি বলেছি, তাকে প্রতিবন্ধী ভাতা পেতে সহায়তা করা হবে।’
উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা রাকেশ পাল বলেন, আশ্রয়ণ প্রকল্পে একটি ছেলে দীর্ঘদিন ধরে শিকলবন্দি। বিষয়টি কয়েকদিন আগে আমি জেনেছি। ছেলেটি যেন প্রতিবন্ধী ভাতা পায়, সেজন্য পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

বিএনপি নেতা একরামুজ্জামানকে নাসিরনগরে অবাঞ্ছিত ঘোঘণা

নাসিরনগর, 29 November 2023, 414 Views,

চলারপথে রিপোর্ট :
ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১-(নাসিরনগর) আসন থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র উত্তোলন করা বিএনপির চেয়ারপার্সনের পদ থেকে সদ্য বহিষ্কৃত সৈয়দ এ কে একরামুজ্জানকে এবার অবাঞ্চিত ঘোষনা করেছে উপজেলা বিএনপি।

আজ ২৯ নভেম্বর বুধবার দুপুরে উপজেলা বিএনপির সভাপতি এম.এ. হান্নান ও সাধারণ সম্পাদক কে এম বশির উদ্দিন স্বাক্ষরিত ফেসবুকে দেয়া এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানা গেছে।

সৈয়দ এ কে একরামুজ্জামান নাসিরনগর উপজেলার বাসিন্দা। আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১- (নাসিরনগর) আসন থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অংশগ্রহণ করতে গত সোমবার জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে মনোনয়নপত্র উত্তোলন করেছেন। এরপর গত মঙ্গলবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য সৈয়দ এ কে একরামুজ্জামানকে ‘দলীয় শৃংখলা পরিপন্থী কর্মকান্ডের অভিযোগে দল থেকে বহিষ্কার করে কেন্দ্রীয় বিএনপি।

নাসিরনগর উপজেলা বিএনপির দলীয় প্যাডে লেখা অবাঞ্ছিতের ঘোষণাটি নিজের ফেসবুকে পোস্ট দেন এম.এ. হান্নান। নাসিরনগর উপজেলা বিএনপির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত অবাঞ্ছিত ঘোষণার বিবৃতি সূত্রে জানা গেছে, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটি কমিটি দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী কর্মকান্ডে জড়িত থাকার সুস্পষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য সৈয়দ এ কে একরামুজ্জামানকে বহিস্কার করেছে। বিএনপির নাসিরনগর উপজেলা শাখার পক্ষ থেকে এই বহিস্কৃত নেতাকে নাসিরনগরে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে নাসিরনগর উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হান্নান বলেন, একরামুজ্জামানকে উপজেলার সকল জায়গায় অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়েছে।

আজ সাবেক মন্ত্রী এড. ছায়েদুল হকের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী

নাসিরনগর, 15 December 2022, 1039 Views,

স্টাফ রিপোর্টার:
মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১-(নাসিরনগর) আসন থেকে ৫ বার নির্বাচিত সাবেক সাংসদ, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সাবেক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট ছায়েদুল হকের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী। এ উপলক্ষে মন্ত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে নাসিরনগর উপজেলার পূর্বভাগের গ্রামের বাড়িতে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ছায়েদুল হক ১৯৪২ সালের ৪ মার্চ নাসিরনগর উপজেলার পূর্বভাগ ইউনিয়নের পূর্বভাগ গ্রামে জন্মগ্রহন করেন। তাঁর পিতার নাম মরহুম সুন্দর আলী। ছায়েদুল হক ১৯৬৬ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজ ছাত্র সংসদের ভিপি নির্বাচিত হন।
১৯৭০ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলবি পাস করেন। ১৯৭১ সালের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৭৩ সালে প্রথমবারের মত (প্রথম জাতীয় সংসদ) আওয়ামী লীগের টিকেটে নাসিরনগর আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ (নাসিরনগর) আসন থেকে সপ্তম, অষ্টম, নবম ও দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে একই সংসদীয় আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০১৪ সালের ১২ জানুয়ারি তিনি মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহন করেন। এর আগে তিনি খাদ্য, দুর্যোগ্য ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ছিলেন। এছাড়াও তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা ছিলেন। ২০১৭ সালের ১৬ ডিসেম্বর সকাল সাড়ে ৮টায় তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

নাসিরনগরে জমিতে পড়েছিল গৃহবধূর রক্তাক্ত লাশ

নাসিরনগর, 20 January 2024, 358 Views,

চলারপথে রিপোর্ট :
ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগরে জমি থেকে এক গৃহবধূর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরিবারের দাবি, শান্তাকে তাঁর স্বামী হত্যা করেছে। ১৯ জানুয়ারি শুক্রবার বিকেল ৩টার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের নাসিরপুর গ্রামের ফসলি জমি থেকে গৃহবধূ শান্তা আক্তারের (২৩) মরহেদ উদ্ধার করা হয়।

শান্তা পূর্বভাগ ইউনিয়নের শ্যামপুর গ্রামের মিনহাজ মিয়ার স্ত্রী ও উপজেলার সদর ইউনিয়নের দাতমণ্ডল গ্রামের শিরু মিয়ার মেয়ে। তাঁর স্বামী মিনহাজের দাবি, তিনি এ বিষয়ে কিছুই জানেন না। তবে শান্তার পরিবারের দাবি, পরিকল্পিতভাবে তাঁকে হত্যা করেছেন মিনহাজ।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ছয় বছর আগে মিনহাজ ও শান্তার পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। তাদের ঘরে দুটি সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকেই মিনহাজ যৌতুকের জন্য শান্তাকে মারধর করতেন। বিভিন্ন সময় পরিবারের কাছে টাকা দাবি করতেন। টাকা না দিলে মানসিক ও শারীরিকভাবে নির্যাতন করতেন। এ নিয়ে আদালতে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মিনহাজের বিরুদ্ধে মামলাও করেন শান্তা। সম্প্রতি আদালত শান্তার পক্ষে রায় দেন এবং ৭ লাখ টাকা জরিমানাও করেন মিনহাজকে। এ নিয়ে মিনহাজ ক্ষুব্ধ ছিলেন।

আরো জানা গেছে, গত বুধবার শান্তার চাচি মারা যান। এ সময় তাদের বাড়িতে আসেন মিনহাজ। তিনি শান্তাকে আদালতের মামলা তুলে নিতে বলেন এবং তিনি স্বাভাবিক জীবনযাপন করবেন বলে আশ্বস্ত করেন। পরদিন বৃহস্পতিবার স্বামীর বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে ঘর থেকে বের হন মিনহাজ ও শান্তা। পর দিনই শান্তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

শান্তার মা নাসিমা বেগম বলেন, ‘আমার মাইয়াডারে যৌতুকের টাকার লাইগ্যা মাইরালাইছে। আমরা না করছিলাম হের জামাইরে (স্বামী) যেন বিশ্বাস না করে। আমি আমার মাইয়্যার (মেয়ে) খুনের বিচার চাই।’

নাসিরনগর থানার ওসি সোহাগ রানা বলেন, লাশের মুখ দিয়ে রক্ত বের হয়েছে। গলায় ওড়না পেঁচানো ছিল। তার বুকের ওপর পায়ের ছাপ দেখতে পাওয়া গেছে। দেখে মনে হচ্ছে এটি হত্যা। তদন্তের প্রয়োজনে এখনই কিছু বলা যাচ্ছে না। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য জেনারেল হাসপাতাল ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পাঠানো হবে।

কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে চুরি করতে গিয়ে আটক নাসিরনগরের ২ জনসহ ৩ নারী

জাতীয়, নাসিরনগর, 18 January 2023, 1817 Views,
স্টাফ রিপোর্টার :
শাঁখা-সিঁদুর পরে হিন্দু নারী সেজে পূজামণ্ডপে গিয়ে অভিনব সব কৌশলে সোনার চেইন ছিনতাইয়ের ঘটনায় ছিনতাইকারী চক্রের ৩ মুসলিম নারী সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার সন্ধ্যায় কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার বাঙ্গরা বাজার থানাধীন আন্দিকোট ইউনিয়নের সিদ্বেস্বরী মন্দিরে এ ঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার দুপুরে গ্রেফতারকৃতদের কুমিল্লার আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। আটককৃত নারী ছিনতাইকারীরা হলো, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাছিরনগর থানার ধরমন্ডল গ্রামের মোঃ বাসির মিয়ার স্ত্রী কাজলী (৩৩), একই গ্রামের ছোট্টু মিয়ার স্ত্রী বানু বেগম (৩৯) ও হবিগঞ্জ জেলার লাখাই থানার গনিপুর গ্রামের গাজী মিয়ার স্ত্রী সোমা আক্তার (৩০)।
বাঙ্গরা বাজার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ রিয়াজ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, আন্দিকোট সিদ্বেস্বরী মন্দিরে পূজা চলাকালীন সময়ের ৫ জন সনাতন ধর্মাবলম্বী নারী দাবি করে তাদের গলায় থাকা সোনার চেইন চুরি হয়ে গেছে। তখন সেখানে দায়িত্বে থাকা কমিটির লোকজন সিসিটিভি ফুটেজ দেখে ৩ জন নারীকে সন্দেহ হলে তারা থানায় খবর দেয়। সেখানে গিয়ে তাদেরকে আটক করে প্রাথমিক সিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় তারা সবাই মুসলিম। অভিনব কায়দায় তারা মুসলিম হয়েও হাতে শাঁখা ও মাথায় সিঁদুর দিয়ে পূজামন্ডপে প্রবেশ করে।
অফিসার ইনচার্জ আরও বলেন- পরে নারী পুলিশ সদস্য দিয়ে তাদের তল্লাশি করে একটি ছেড়া সোনার চেইন ও কিছু নগদ টাকা পাওয়া যায়। একপর্যায় তারা চুরির বিষয়টি স্বীকার করে বলে পূজামণ্ডপে তাদেরকে ছাড়াও আরো দুই গ্রুপে ৭-৮ জন সদস্য সেখানে এসেছিলো বাকি সোনার চেইন তাদের কাছে। এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়। মঙ্গলবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাদের জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। অজ্ঞাতনামা পলাতক আসামীদেরকে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।