সরকারের পতন ঘটাতে আরেকটা যুদ্ধ করব: চরমোনাই পির

রাজনীতি, 16 June 2023, 369 Views,

অনলাইন ডেস্ক :
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর ও চরমোনাই পির মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম বলেছেন, দেশ আজ হুমকির মুখে। এখন বাংলাদেশ অন্য দেশের তাবেদারিতে চলে গেছে। ওখান থেকে যেভাবে সিদ্ধান্ত হয়, আমাদের দেশে সেভাবে বাস্তবায়ন হয়।

তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধে আমরা জীবন দিয়েছি। আমরাই দেশকে রক্ষা ও জালেমদের উৎখাত করতে আরেকবার মুক্তিযুদ্ধ করব। বর্তমান সরকারের পতন ঘটিয়ে দেশকে রক্ষা করার জন্য প্রয়োজনে আরেকবার স্বাধীনতা যুদ্ধ করতে হবে।

বরিশাল সিটি করপোরেশন (বিসিসি) নির্বাচনে হাতপাখার মেয়র প্রার্থী দলের নায়েবে আমীর ফয়জুল করীমসহ নেতাকর্মীদের ওপর হামলার বিচার ও ইসির পদত্যাগের দাবিতে আজ ১৬ জুন শুক্রবার বিকালে বরিশালে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। এরপর নেতাকর্মীরা নগরীতে একটি বিশাল বিক্ষোভ মিছিল বের করেন।

সিইসির পদত্যাগ দাবি করে চরমোনাই পির বলেন, ব্যক্তি পর্যায়ে দলকে মজবুতের লক্ষ্যে স্থানীয় পর্যায়ের নির্বাচনগুলোতে অংশ নিয়ে আসছিলাম। কিন্তু বরিশাল সিটি নির্বাচনে বর্তমান সরকার, ইসি ও প্রশাসন যে কাণ্ড ঘটিয়েছে বিশ্বে কলঙ্গের ইতিহাস হয়ে থাকবে। ধিক্কার জানাই এই সিইসিকে।

তিনি আরো বলেন, তাদের কথা এবং কার্যক্রমে লক্ষ্য করেছি, পরিকল্পিতভাবে হত্যা করার জন্যই ফয়জুলের ওপর আক্রমণ করা হয়েছে। আমরা পানির স্রোতে ভেসে আসিনি। এই জালেম সরকারকে বাংলার মানুষ উৎখাত করে বঙ্গোপসাগরে নিক্ষেপ করবে। তাই আসুন আমরা সবাই একত্রে জালেম, ভোটচোর, ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হই।

সমাবেশ শুরুর আগে নেতাকর্মীরা নগরীর বিভিন্ন এলাকা থেকে মিছিল নিয়ে বিভিন্ন স্লোগান দিয়ে সভাস্থলে জড়ো হন। এ সময় তারা সিইসির কুশপুত্তলিকা ও কফিন নিয়ে প্রতিকী প্রতিবাদ করেন। অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে সভাস্থলে পুলিশের একাধিক দল মোতায়েন ছিল।

Leave a Reply

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কোরবানির পশুর হাটে ক্রেতা কম

চলারপথে রিপোর্ট : পবিত্র ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার Read more

ছুরিকাঘাতে যুবক নিহতের ঘটনায় মামলা, গ্রেফতার…

চলারপথে রিপোর্ট : আশুগঞ্জে মাদক ব্যবসায়ী মো. রুবেলের ছুরিকাঘাতে হৃদয় Read more

লাইব্রেরিতে বই পড়ে পুরস্কার পেলেন ১৫…

চলারপথে রিপোর্ট : নাসিরনগরে মে মাসে সর্বাধিক দিন লাইব্রেরিতে উপস্থিত Read more

মানুষ গন্তব্যে পৌঁছানো পর্যন্ত সড়কে পুলিশ…

অনলাইন ডেস্ক : এবারের ঈদে লম্বা ছুটি থাকায় অধিকসংখ্যক মানুষ Read more

আখাউড়া চেকপোস্টে ভারতগামীদের উপচে পড়া ভিড়

চলারপথে রিপোর্ট : ঈদুল আযহার আর মাত্র দুদিন বাকি। ইতোমধ্যে Read more
ফাইল ছবি

পুকুর থেকে শিশুর মরদেহ উদ্ধার

চলারপথে রিপোর্ট : আখাউড়ায় পুকুর থেকে ভাসমান অবস্থায় মো. জুনায়েদ Read more

সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় তিন জন বাংলাদেশি…

অনলাইন ডেস্ক : সৌদি আরবের আল নাজাদ অঞ্চলের আপিপ শহরে Read more

তুলশীগঙ্গার তীরে ঘুড়ির মেলা

চলারপথে রিপোর্ট : জয়পুরহাটের তুলশীগঙ্গা নদীর তীরের সন্যাসীতলা মন্দিরের পাশে Read more
ফাইল ছবি

আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে প্রথমবার জিরা আমদানি

চলারপথে রিপোর্ট : পাঁচ মাসেরও বেশি সময় বন্ধ থাকার পর Read more
ফাইল ছবি

স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে দেশে ফিরলেন ওবায়দুল…

অনলাইন ডেস্ক : স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে দেশে ফিরেছেন আওয়ামী লীগের Read more
ফাইল ছবি

বিরোধী দলীয় নেতা, উপনেতা ও রওশনকে…

অনলাইন ডেস্ক : জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা জি এম Read more
ফাইল ছবি

আশুগঞ্জ ও নবীনগরে বজ্রাঘাতে দুইজনের মৃত্যু

চলারপথে রিপোর্ট : ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আশুগঞ্জ ও নবীনগরে বজ্রপাতে দুইজন Read more

১০ মন্ত্রী ৪৫ এমপির সঙ্গে স্বতন্ত্রের টক্কর

জাতীয়, রাজনীতি, 4 January 2024, 364 Views,
ফাইল ছবি

অনলাইন ডেস্ক :
বিএনপিহীন নির্বাচনেও সহজে পার পাচ্ছেন না সরকারের ১০ মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী। এ দলে আছেন বর্তমান সংসদের আওয়ামী লীগের ৪৫ এমপিও। আওয়ামী লীগের সমর্থন পাওয়া জাতীয় পার্টির (জাপা) চার প্রার্থীরও পরিস্থিতি বেহাল। নৌকা ও লাঙ্গলের এসব প্রার্থীর সামনে ‘দেয়াল’ হয়ে দাঁড়িয়েছেন আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। এদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েও এগিয়ে আছেন আওয়ামী লীগের সাত ও জাতীয় পার্টির একজন মনোনয়নবঞ্চিত এমপি।

আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কয়েকজন শীর্ষ নেতার কাছ থেকে পাওয়া আসনভিত্তিক পর্যালোচনায় এমন ইঙ্গিত মিলেছে। প্রায় একই ধরনের তথ্য দিয়েছেন সরকারি দলের বেশ কয়েকজন কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতা। তাদের অনেকেই ইতোমধ্যে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক নির্বাচনী এলাকা পরিদর্শন করে এসেছেন। এ ছাড়া স্থানীয় প্রতিনিধিদের তথ্য বিশ্লেষণেও পাওয়া গেছে এমন আভাস।

আওয়ামী লীগের কয়েকজন নীতিনির্ধারক নেতা জানিয়েছেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের সঙ্গে বেশির ভাগ আসনেই দলের স্বতন্ত্র প্রার্থীদের প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে। স্বতন্ত্র প্রার্থী অনেকেই জেলা ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এবং পৌর মেয়রের পদ ছেড়ে নির্বাচনে লড়ছেন। তাদের কেউ কেউ জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কিংবা সাধারণ সম্পাদক। ফলে স্থানীয় নেতাকর্মীরা বিভক্ত হয়ে পড়েছেন। এ নিয়ে সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী এলাকাগুলোতে দেখা দিয়েছে ঘরোয়া বিবাদ।

চ্যালেঞ্জের মুখে ১০ মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী

শিক্ষামন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন চাঁদপুর-৩ আসনে। এখানে তাঁর সঙ্গে লড়ছেন দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী ও সাবেক এমপি ড. শামছুল হক ভূঁইয়া। এই আসনে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতার আভাস মিলেছে। ড. শামছুল জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি।

নওগাঁ-১ আসনে খাদ্যমন্ত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপির নাজুক অবস্থা। তাঁর সঙ্গে দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী নিয়ামতপুর উপজেলা শাখার সাবেক সহসভাপতি খালেকুজ্জামান তোতার হাড্ডাহাড্ডি লড়াই জমে উঠেছে।

পিরোজপুর-১ আসনে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী এবং দলের কেন্দ্রীয় সাবেক আইনবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট শ ম রেজাউল করিম এমপি এগিয়ে থাকলেও তাঁকে স্বস্তি দিচ্ছেন না দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাবেক এমপি এ কে এম এ আবদুল আউয়াল।

গাজীপুর-২ আসনে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী এবং মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক কার্যনির্বাহী সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল এমপিকে চ্যালেঞ্জ ছুড়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী দলের মহানগর শাখার সাবেক সহসভাপতি কাজী আলিম উদ্দিন বুদ্দিন।

নাটোর-৩ আসনে কিছুটা ঝুঁকিতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী এবং জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি। তাঁর সঙ্গে সমানভাবে এগোচ্ছেন দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী সিংড়ার সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম শফিক।

মেহেরপুর-১ আসনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে রয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক ফরহাদ হোসেন এমপি। তাঁর প্রধান প্রতিপক্ষ দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা শাখার সাবেক সভাপতি ও সাবেক এমপি অধ্যাপক আবদুল মান্নান।

যশোর-৫ আসনে পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী এবং জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি স্বপন ভট্টাচার্য এমপির সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা কৃষক লীগের সহসভাপতি ইয়াকুব আলীর তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে ভোটাররা মনে করছেন।

গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী এবং ফুলপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শরীফ আহমেদ এমপি ময়মনসিংহ-২ আসনে এগিয়ে থাকলেও চিন্তামুক্ত নন। তাঁর বিরুদ্ধে শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলেছেন বিএনপির সাবেক নেতা ও সাবেক এমপি শাহ শহীদ সারোয়ার।

হবিগঞ্জ-৪ আসনে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মাহাবুব আলী এমপি রীতিমতো কোণঠাসা হয়ে আছেন। তাঁর বিরুদ্ধে এগিয়ে রয়েছেন দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী যুবলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় আইনবিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।

শরীয়তপুর-২ আসনে পানিসম্পদ উপমন্ত্রী ও ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এ কে এম এনামুল হক শামীম এমপির বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ ছুড়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি কর্নেল (অব.) শওকত আলীর ছেলে খালেদ শওকত আলী।

ঝুঁকিতে ৪৫ এমপি

দিনাজপুর-১ আসনে বর্তমান এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপালের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে দলের পীরগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি জাকারিয়া জাকা শক্ত প্রতিন্দ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলেছেন। দিনাজপুর-৩ আসনে ইকবালুর রহিম বাবু এমপির বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী দলের সদর উপজেলা শাখার সাবেক সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ কুমার ঘোষ হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস দিচ্ছেন। দিনাজপুর-৫ আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার এমপির বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন পার্বতীপুরের চণ্ডীপুর ইউনিয়ন শাখার সাবেক আইন সম্পাদক হযরত আলী বেলাল। এ আসনেও দুই প্রার্থীর টক্কর চলছে।

নীলফামারী-২ আসনে আসাদুজ্জামান নূর এমপির সঙ্গে দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা শাখার সাবেক সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদিনের শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে। গাইবান্ধা-৩ আসনে সমান গতিতে এগোচ্ছেন কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট উম্মে কুলসুম স্মৃতি এমপি, স্বতন্ত্র প্রার্থী দলের সাদুল্লাপুর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান শাহরিয়ার খান বিপ্লব ও স্থানীয় নেতা আজিজার রহমান। চতুর্মুখী প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকায় প্রতিদিনই নির্বাচনী হিসাব বদলে যাচ্ছে বগুড়া-১ আসনে। এখানে দলের সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল মান্নানের স্ত্রী সাহাদারা মান্নান এমপির সঙ্গে লড়ছেন কেন্দ্রীয় শিল্প ও বাণিজ্যবিষয়ক উপকমিটির সদস্য কে এস এম মোস্তাফিজুর রহমান, স্থানীয় নেতা শাহজাদী আলম লিপি ও জেলা বিএনপির সাবেক উপদেষ্টা মোহাম্মদ শোকরানা।

বগুড়া-৬ আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রাগেবুল আহসান রিপু এমপির সঙ্গে সমান তালে লড়ছেন দলের শহর শাখার সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল মান্নান আকন্দ। চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনে ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল এমপির বিরুদ্ধে দুইজন স্বতন্ত্র প্রার্থী। শিবগঞ্জের সাবেক চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম ও সাবেক এমপি গোলাম রাব্বানী। এ আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ডা. শিমুল এগিয়ে থাকলেও সৈয়দ নজরুল ইসলাম প্রতিদ্বন্দ্বিতায় পিছিয়ে নেই।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জিয়াউর রহমান এমপির সঙ্গে দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক এমপি গোলাম মোস্তফার হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে। রাজশাহী-১ আসনে ওমর ফারুক চৌধুরী এমপি কিছুটা নড়বড়ে অবস্থানে রয়েছেন। তাঁর বিরুদ্ধে এগিয়ে রয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী চিত্রনায়িকা শারমিন আক্তার নিপা মাহিয়া মাহি। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের স্ত্রী আয়েশা আক্তার ডালিয়া এই আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী। আরও দুই স্বতন্ত্র প্রার্থী মুণ্ডুমালা পৌরসভার সাবেক মেয়র গোলাম রাব্বানী ও আক্তারুজ্জামান সমান গতিতে এগোচ্ছেন। এখানে চতুর্মুখী প্রতিদ্বন্দ্বিতার সম্ভাবনা রয়েছে।

এ ছাড়া প্রায় সমান গতিতে এগোচ্ছেন ঝিনাইদহ-১ আসনে আব্দুল হাই এমপি ও দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা শাখার সহসভাপতি নজরুল ইসলাম দুলাল, ঝিনাইদহ-২ আসনে তাহজীব আলম সিদ্দিকী এমপি ও দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা শাখার সহসভাপতি নাসের শাহরিয়ার জাহিদী মহুল, ঝিনাইদহ-৪ আসনে আনোয়ারুল আজীম আনার এমপি ও দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী কালীগঞ্জ উপজেলা বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি আবদুর রশিদ খোকন। শেখ আফিল উদ্দিন এমপি যশোর-১ আসনে এগিয়ে থাকলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী বেনাপোলের সাবেক পৌর মেয়র আশরাফুল আলম লিটন প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলেছেন। যশোর-৩ আসনে কাজী নাবিল আহমেদ এমপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহিত কুমার নাথের মধ্যে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতার আভাস মিলেছে।

যশোর-৬ আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার এমপির সঙ্গে সমান গতিতে লড়ছেন কেশবপুরের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এ এইচ এম আমির হোসেন। বাগেরহাট-৩ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার এমপির অবস্থা কিছুটা ভালো হলেও পিছিয়ে নেই স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ইদ্রিস আলী ইজারাদার। খুলনা-৪ আসনে আবদুস সালাম মুর্শেদী এমপির সঙ্গে তীব্র লড়াই হতে পারে স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এস এম মোর্ত্তজা রশিদী দারার। খুলনা-৫ আসনে ডুমুরিয়া আওয়ামী লীগের সভাপতি নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপির সঙ্গে মূল লড়াই হবে দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী ফুলতলার সাবেক চেয়ারম্যান শেখ আকরাম হোসেনের। এখানে নৌকার প্রার্থী কিছুটা এগিয়ে রয়েছেন।

বরগুনা-১ আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু এমপি, দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা শাখার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারোয়ার টুকু ও সাবেক এমপি গোলাম সারোয়ার ফোরকানের ত্রিমুখী লড়াই চলছে। তীব্র প্রতিযোগিতা হতে পারে পটুয়াখালী-৩ আসনে এস এম শাহজাদা সাজু এমপির সঙ্গে দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী লে. জেনারেল (অব.) আবুল হোসেনের; পটুয়াখালী-৪ আসনে মহিববুর রহমান মহিব এমপির সঙ্গে দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক এমপি মাহবুবুর রহমান তালুকদার এবং বরিশাল-২ আসনে ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন এমপির সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক উপকমিটির সদস্য এ কে ফাইয়াজুল হক রাজুর মধ্যে ভোটের লাড়াই হতে পারে।

পিরোজপুর-২ আসনে জাতীয় পার্টির (জেপি) চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এমপি কিছুটা এগিয়ে থাকলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দীন মহারাজ পিছিয়ে নেই। ময়মনসিংহ-১০ আসনে ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল এমপির সঙ্গে লড়ছেন দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা শাখার উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ড. আবুল হোসেন দীপু ও গফরগাঁও পৌরসভার সাবেক মেয়র অ্যাডভোকেট কায়সার আহমেদ। এখানে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সঙ্গে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে ড. আবুল হোসেন দীপুর। নেত্রকোনা-৩ আসনে দলের কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল এমপির সঙ্গে লড়াই করছেন দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক দুই এমপি ইফতেখার উদ্দিন তালুকদার পিন্টু ও মঞ্জুর কাদের কোরায়শী।

কিশোরগঞ্জ-৫ আসনে বর্তমান এমপি আফজাল হোসেনের বিরুদ্ধে শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুব্রত কুমার পাল। মানিকগঞ্জ-২ আসনে সংগীতশিল্পী মমতাজ বেগম এমপির সঙ্গে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে আছেন জেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ জাহিদ আহমেদ টুলু এবং সাবেক এমপি শামসুদ্দিন আহমেদের ছেলে ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য শাহাবুদ্দিন আহমেদ চঞ্চল।

মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস এমপির বিরুদ্ধে লড়াই জমিয়েছেন দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী সদর পৌরসভার সাবেক মেয়র ফয়সাল বিপ্লব। ঢাকা-১ আসনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান এমপির বিরুদ্ধে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম এমপি, ঢাকা-২ আসনে দলের কেন্দ্রীয় সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম এমপির বিরুদ্ধে কেরানীগঞ্জ মডেল থানা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য ডা. হাবিবুর রহমান সমান গতিতে এগোচ্ছেন।

নরসিংদী-১ আসনে লে. কর্নেল (অব.) নজরুল ইসলাম হিরু বীরপ্রতীক এমপির বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক মেয়র কামরুজ্জামান কামরুল, নারায়ণগঞ্জ-১ আসনে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক এমপির বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী রূপগঞ্জ উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান শাজাহান ভূঁইয়া ও তৃণমূল বিএনপির মহাসচিব তৈমূর আলম খন্দকারের প্রতিদ্বন্দ্বিতা জমে উঠেছে। সিলেট-৩ আসনে সমান গতিতে লড়ছেন হাবিবুর রহমান এমপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএমএ মহাসচিব ডা. ইহতেশামুল হক চৌধুরী। সিলেট-৬ আসনে নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপির সঙ্গে মূল লড়াই হচ্ছে কানাডা আওয়ামী লীগের সভাপতি সারোয়ার হোসেন ও সাবেক এমপি সেলিম উদ্দিনের। তৃণমূল বিএনপির চেয়ারপারসন শমসের মবিন চৌধুরীও এ আসনে লড়ছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ আসনে বদরুদ্দোজা মোহাম্মদ ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম এমপির সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপির সাবেক নেতা সৈয়দ এ কে একরামুজ্জামান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনে র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপির সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থী সদর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ফিরোজুর রহমান ওলিওর শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে। এছাড়া কুমিল্লা-২ আসনে সেলিমা আহমাদ মেরী এমপির বিরুদ্ধে সমান তালে লড়ছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী দলের হোমনা উপজেলা শাখার সভাপতি অধ্যাপক আবদুল মজিদ, কুমিল্লা-৭ আসনে অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত এমপির বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক এমপি অধ্যাপক আলী আশরাফের ছেলে মুনতাকিম আশরাফ টিটু, চাঁদপুর-৪ আসনে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি শফিকুর রহমান এমপির বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও সাবেক এমপি ড. শামছুল হক ভূঁইয়া।

চাঁদপুর-৫ আসনে সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মেজর জেনারেল (অব.) রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম এমপি কিছুটা এগিয়ে থাকলেও তাঁর বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী হাজীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গাজী মাঈনুদ্দিন শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলেছেন। প্রায় একই চিত্র নোয়াখালী-৪ আসনেও। এখানে একরামুল করিম চৌধুরী এমপির সঙ্গে লড়ছেন দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা শাখার সহসভাপতি অ্যাডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহীন। ত্রিমুখী লড়াই হচ্ছে চট্টগ্রাম-১৬ আসনে। এখানে মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী এমপির বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলেছেন দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী দক্ষিণ জেলা শাখার সহসভাপতি মুজিবুর রহমান ও দক্ষিণ জেলা শাখা আওয়ামী লীগের সাবেক কার্যনির্বাহী সদস্য আব্দুল্লাহ কবির লিটন।

জাপার চার প্রার্থী বেকায়দায়

নীলফামারী-৩ আসনে আওয়ামী লীগের সমর্থন পেয়েও কুলিয়ে উঠতে পারছেন না জাতীয় পার্টির মেজর (অব.) রানা মোহাম্মদ সোহেল এমপি। এ আসনে শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে সাবেক এমপি গোলাম মোস্তফার স্ত্রী মারজিয়া সুলতানা ও যুবলীগের কেন্দ্রীয় ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন পাভেলের মধ্যে।

নীলফামারী-৪ আসনেও অভিন্ন চিত্র। আওয়ামী লীগের সমর্থন পেলেও জাতীয় পার্টির আহসান আদেলুর রহমান এমপির অবস্থা তেমন ভালো না। তাঁর সঙ্গে লড়াই হবে সৈয়দপুর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান মুখছেদুল মুমিন ও জাতীয় পার্টির স্বতন্ত্র প্রার্থী সিদ্দিকুল আলমের।

রংপুর-১ আসনে আওয়ামী লীগের সমর্থন নিয়ে প্রার্থী হয়েছেন জাতীয় পার্টির হোসেন মকবুল শাহরিয়ার। তাঁর সঙ্গে ত্রিমুখী প্রতিদ্বন্দ্বিতা হতে পারে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়া মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপি ও গঙ্গাচড়ার সাবেক চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান বাবলুর। তবে স্থানীয় প্রার্থী হওয়ায় আসাদুজ্জামান বাবলু কিছুটা সুবিধা পাচ্ছেন।

চট্টগ্রাম-৫ আসনেও লড়াই হচ্ছে ত্রিমুখী। আওয়ামী লীগের সমর্থন নিয়ে এ আসনে অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টির ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এমপি। তাঁর সঙ্গে সমান তালে লড়ছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শাহজাহান চৌধুরী ও প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক ফোরামের নাজিম উদ্দিন।

মনোনয়নবঞ্চিত বর্তমান আট এমপি এগিয়ে

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আবুল কালাম আজাদের বিরুদ্ধে গাইবান্ধা-৪ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান এমপি মনোয়ার হোসেন চৌধুরী। এখানে হাড্ডাহাড্ডি প্রতিদ্বন্দ্বিতার আভাস মিলেছে। মনোয়ার হোসেন চৌধুরী আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েও পাননি।

নওগাঁ-৩ আসনে ছলিম উদ্দীন তরফদার সেলিম এমপি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়ে ব্যর্থ হওয়ার পরও নির্বাচনে আছেন। তাঁর সঙ্গে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সাবেক সিনিয়র সচিব সৌরেন্দ্র নাথ চক্রবর্তী, সাবেক এমপি ড. আকরাম হোসেন চৌধুরীর স্ত্রী মাহফুজা আকরাম চৌধুরী মায়ার ত্রিমুখী লড়াই হচ্ছে।

ঝিনাইদহ-৩ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন দলের জেলা শাখার সহসভাপতি শফিকুল আজম খান চঞ্চল এমপি। তাঁর সঙ্গে মহেশপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য সালাহ উদ্দিন মিয়াজীর হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হচ্ছে।

জামালপুর-৪ আসনে ডা. মুরাদ হাসান এমপি শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলেছেন। তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েও পাননি। তাঁর বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়েছেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান হেলাল।

ময়মনসিংহ-৯ আসনে নান্দাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মেজর জেনালের (অব.) আব্দুস সালামের সঙ্গে সমান তালে লড়ছেন দলের বর্তমান এমপি আনোয়ারুল আবেদিন খান তুহিন। তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়ে ব্যর্থ হয়েছেন।

বর্তমান এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতন সুনামগঞ্জ-১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে লড়ছেন। এই আসনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী রণজিত চন্দ্র সরকারের বিরুদ্ধে তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে। তবে এখানে এগিয়ে রয়েছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী।

সুনামগঞ্জ-২ আসনে শাল্লা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মাহমুদের সঙ্গে দলের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের স্ত্রী ও বর্তমান এমপি জয়া সেনগুপ্তার জমজমাট লড়াই চলছে। জয়া সেনগুপ্তা আওয়ামী লীগের মনোনয়নবঞ্চিত হয়েছেন।

আওয়ামী লীগের সঙ্গে ২৬ আসনে ভাগাভাগি হলেও সুনামগঞ্জ-৪ আসনের জাতীয় পার্টির বর্তমান এমপি পীর ফজলুর রহমান মিসবাহর ভাগ্য খোলেনি। তবে তিনি জাতীয় পার্টির প্রার্থী হয়ে সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) সাবেক চেয়ারম্যান মোহম্মদ সাদিকের বিরুদ্ধে শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতার আভাস দিচ্ছেন।

নতুন ও পুরোনোর লড়াই

পঞ্চগড়-১ আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি নাঈমুজ্জামান ভূঁইয়া মুক্তার সঙ্গে দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার সাদাত সম্রাটের হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যাচ্ছে। নাঈমুজ্জামান ভূঁইয়া মুক্তা প্রথমবারের মতো সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন। ঠাকুরগাঁও-২ আসনে দবিরুল ইসলাম এমপির ছেলে মাজহারুল ইসলামের সঙ্গে সমানতালে লড়ছেন বালিয়াডাঙ্গির সাবেক চেয়ারম্যান আলী আসলাম জুয়েল।

লালমনিরহাট-৩ আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমানের সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জাবেদ হোসেনের প্রতিদ্বন্দ্বিতার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। কুড়িগ্রাম-৩ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সৌমেন্দ্র প্রসাদ পান্ডে গবার সঙ্গে শক্ত লড়াই করছেন জাতীয় পার্টির আবদুস সোবহান ও আক্কাস আলী সরকার। এখানে আক্কাস আলী সরকার কিছুটা এগিয়ে। কুড়িগ্রাম-৪ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বিপ্লব হাসান পলাশ কিছুটা এগিয়ে থাকলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী দলের রৌমারির যাদুরচর ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি মজিবুর রহমান বঙ্গবাসীর শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে।

নাটোর-৪ আসনে বড়াইগ্রামের সাবেক চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারীর সঙ্গে সমানতালে লড়ছেন দলের বিদ্রোহী প্রার্থী সাবেক এমপি আবদুল কুদ্দুসের ছেলে আসিফ আবদুল্লাহ বিন কুদ্দুস শোভন। প্রতিযোগিতা থাকলেও সিরাজগঞ্জ-৩ আসনে জয়ের সম্ভাবনা ডা. আব্দুল আজিজ এমপির। তাঁর সঙ্গে লড়াই হবে দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী কৃষক লীগের সহসভাপতি সাখাওয়াত হোসেন সুইটের সঙ্গে। হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে রয়েছেন মেহেরপুর-২ আসনে দলের জেলা শাখার স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক আবু সালেহ মোহাম্মদ নাজমুল হক এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক এমপি মকবুল হোসেন। কুষ্টিয়া-৩ আসনে দলের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল-আলম হানিফ এমপি এগিয়ে থাকলেও পৌর মেয়র আনোয়ার আলীর ছেলে পারভেজ আনোয়ার তনু পিছিয়ে নেই।

সাতক্ষীরা-১ আসনে কলারোয়া আওয়ামী লীগের সভাপতি ফিরোজ আহম্মেদ স্বপনের বিরুদ্ধে লড়ছেন দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী এস এম মুজিবুর রহমান সরদার মুজিব, তালা উপজেলা শাখার সভাপতি শেখ নুরুল ইসলাম ও জাতীয় পার্টির সৈয়দ দিদার বখত। এখানে ফিরোজ আহম্মেদ স্বপন ও দিদার বখতের মধ্যে লড়াই হতে পারে। সাতক্ষীরা-৪ আসনে শ্যামনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম আতাউল হক দোলনের সঙ্গে লড়াই হবে বিএনএম প্রার্থী ও সাবেক এমপি এইচ এম গোলাম রেজার। টাঙ্গাইল-৩ আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ডা. কামরুল হাসান খানের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান তৈরি করেছেন আতাউর রহমান খান এমপির ছেলে দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী আমানুর রহমান খান রানা।

টাঙ্গাইল-৪ আসনে কালিহাতী আওয়ামী লীগের সভাপতি মোজহারুল ইসলাম তালুকদার ও সাবেক এমপি আবদুল লতিফ সিদ্দিকীর মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে। শেরপুর-৩ আসনে শ্রীবরদী আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এ ডি এম শহিদুল ইসলাম ও দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী ঝিনাইগাতীর সাবেক চেয়ারম্যান এস এম আব্দুল্লাহ হেল ওয়ারেজ নাইম সমান গতিতে লড়ছেন। প্রতিদিনই ভোটের রং বদলাচ্ছে ময়মনসিংহ-৪ আসনে। এখানে মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোহিত উর রহমান শান্তর সঙ্গে দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা শাখার সহসভাপতি আমিনুল হক শামীমের হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস মিলেছে। মুন্সীগঞ্জ-১ আসনে সিরাজদীখান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারোয়ার কবির সমান গতিতে এগোচ্ছেন।

এ ছাড়া হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করছেন ঢাকা-৪ আসনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য অ্যাডভোকেট সানজিদা খানমের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সাবেক সহকারী একান্ত সচিব ড. আওলাদ হোসেন, ঢাকা-৫ আসনে যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনর রশীদ মুন্নার বিরুদ্ধে সাবেক এমপি হাবিবুর রহমান মোল্লার ছেলে মশিউর রহমান মোল্লা সজল ও ঢাকা দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি কামরুল হাসান রিপন, ঢাকা-১৪ আসনে যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিলের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঢাকা মহানগর উত্তর যুব মহিলা লীগের সাবেক সভাপতি সাবিনা আক্তার তুহিন, সিলেট-২ আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরীর বিরুদ্ধে বিশ্বনাথের পৌর মেয়র মুহিবুর রহমান, কুমিল্লা-১ আসনে দলের কেন্দ্রীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক প্রকৌশলী আবদুস সবুরের বিরুদ্ধে দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী নাঈম হাসান। ত্রিমুখী প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে মৌলভীবাজার-২ আসনে। তিন প্রার্থী হচ্ছেন– দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, কুলাউড়ার সাবেক চেয়ারম্যান এ কে এম শফি আহমদ সালমান ও তৃণমূল বিএনপির সাবেক এমপি এম এন শাহীন।

বর্তমান দুই এমপির যুদ্ধ

বর্তমান সংসদের দুই সদস্য পরস্পরের প্রতিপক্ষ হয়েছেন কুমিল্লা-৬ আসনে। মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আ ক ম বাহাউদ্দীন বাহার এমপি এবং সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি আনজুম সুলতানা সীমা। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আ ক ম বাহাউদ্দীন বাহার প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কিছুটা এগিয়ে আছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী আনজুম সুলতানা সীমা দলের জেলা শাখার সাবেক সাধারণ সম্পাদক আফজল খানের মেয়ে।

ভাইবোনের প্রতিযোগিতা

কিশোরগঞ্জ-১ আসনে বোনের সঙ্গে ভাইয়ের শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে। এখানে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ডা. সৈয়দা জাকিয়া নুর লিপি এমপির বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন তাঁর ভাই মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ শাফায়াতুল ইসলাম। এই আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী এগিয়ে রয়েছেন। সূত্র : সমকাল

দ্রব্যমূল্য শিগগিরই নিয়ন্ত্রণে আসবে : সেতুমন্ত্রী

রাজনীতি, 27 January 2024, 129 Views,
ফাইল ছবি

অনলাইন ডেস্ক :
বর্তমান সরকারের নানামুখী উদ্দ্যগে শিগগিরই দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে আসবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, ‘দেশের মানুষ সংকটে পড়লে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হৃদয়ে আঘাত লাগে। সামনে পবিত্র রমজান মাস, অচিরেই আমরা দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে আনতে পারব। আস্থা হারাবেন না। বিএনপি’র কথায় কান দেবেন না।’

ওবায়দুল কাদের আজ ২৭ জানুয়ারি শনিবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু এ্যাভিনিউস্থ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত শান্তি ও গণতন্ত্র সমাবেশে একথা বলেন। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ এই সমাবেশের আয়োজন করে।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু আহমেদ মন্নাফীর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবিরের সঞ্চলনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক, ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন ও এ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ ও মাহবুব উল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক প্রমুখ।

বিপুল ভোটে আওয়ামী লীগ নির্বাচিত হয়েছে জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিদেশিদের ভয় দেখান? ৪১.৮ শতাংশ ভোটারের ভোটে সরকার গঠিত হয়েছে। এই সরকার জনগণের সরকার, নির্বাচিত সরকার। যেখানে ২৮টি দল অংশ নিয়েছে।

তিনি বলেন, সরকারকে যারা বিদেশিদের ভয় দেখায়, তাদের দেশপ্রেম নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। চীন-ভারত-রাশিয়া আমাদের বন্ধু হতে পারে, কিন্তু আমাদের সরকারকে কোনো বিদেশি শক্তি ক্ষমতায় বসায়নি। দেশের মানুষের বিপুল ভোটে এ সরকার নির্বাচিত হয়েছে। শেখ হাসিনা মহান আল্লাহ ছাড়া কাউকে ভয় পান না।

বিএনপির আন্দোলন কবে হবে- প্রশ্ন রেখে ওবায়দুল কাদের বলেন, ১৫ বছর গেল, সামনে আরও ৫ বছর। লন্ডনের তারেক রহমানে আর কারো আস্থা নেই। নেতাকর্মীরা এখন আর তারেকের ফরমায়েশে কান দেয় না। আগামী ৩০ জানুয়ারি বিএনপির কালো পতাকা মিছিল কর্মসূচির দিনও সারা দেশে নেতাকর্মীদের মাঠে থাকার নির্দেশনা দিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, কালো পতাকা মানে শোকের মিছিল। এ আরেক ভুয়া কর্মসূচি। ৩০ তারিখে আবার ডেকেছে, সেটাও ভুয়া। আপনারা সবাই ৩০ জানুয়ারি সকাল থেকে মাঠে থাকবেন।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ৩০ তারিখ পতাকা হাতে ‘শান্তি, গণতন্ত্র ও উন্নয়ন’ সমাবেশে অংশ নেবেন। তারা সতর্ক পাহারায় থাকবেন।

বিএনপিকে ‘অপ-সাম্প্রদায়িক শক্তি’ হিসেবে অভিহিত করে- ওবায়দুল কাদের বলেন, এদের আমরা আর বাড়তে দিতে পারি না, এদের রুখতে হবে। স্বাধীনতার সপক্ষের শক্তিকে ঐক্যবদ্ধভাবে এদের মোকাবিলা করতে হবে।

তিনি বলেন, নির্বাচনের খেলা শেষ, এখন খেলা রাজনীতির। দুর্নীতির বিরুদ্ধে, সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধেও খেলা হবে। খেলা হবে হরতাল ও আগুন-সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে। ৩০ তারিখ আবার কালো পতাকা মিছিল। সে দিন আপনারা লাল-সবুজের পতাকা নিয়ে গণতন্ত্র, শান্তি ও উন্নয়ন সমাবেশ করবেন।

সমাবেশে বক্তব্য প্রদানকালে বিএনপি নেতাদের উদ্দেশ্য করে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, কালো পতাকা কাকে দেখাবে? বিএনপির উচিত ছিল, নেতারা যারা ব্যর্থ কর্মসূচি দিয়েছে, তাদের কালো পতাকা দেখিয়ে তৃণমূল নেতাদের নেতৃত্বে নিয়ে আসা। এখন বিএনপিকে আগামী পাঁচ বছর নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করতে হবে। তিনি বলেন, নির্বাচনকে বানচাল করার জন্য এমন কোনো হীন কাজ নেই, যা তারা (বিএনপি) করেনি। বিদেশি ষড়যন্ত্রসহ সকল ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে আমরা শান্তিপূর্ণ নির্বাচন করেছি। আজকে আমাদের আনন্দের দিন, পঞ্চমবারের মতো আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন। শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে আবার সরকার এসেছে। এতে দক্ষিণ আওয়ামী লীগ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে।

আন্তর্জাতিক বিশ্ব এই সরকারকে সমর্থন জানাচ্ছে জানিয়ে কামরুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশকে একটি স্মার্ট বাংলাদেশ করার প্রত্যয় নিয়ে শেখ হাসিনা এগিয়ে যাচ্ছে। বিএনপি নির্বাচনে না এসে, নির্বাচন বন্ধ করার চেষ্টা করে, মানুষ পুড়িয়ে মেরে যে অপরাধ করেছে- সে অপরাধের বোধ তাদের হবে। তারা হয় তাদের ভুল স্বীকার করে রাজনীতি থেকে বিদায় নেবে, না হয় জনগণের কাছে ভুল স্বীকার করে আবার রাজনীতিতে আসবে।

জনগণ আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে বিএনপিকে কালো পতাকা দেখিয়ে দিয়েছে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বিভিন্ন রাষ্ট্রপ্রধান ও সরকারপ্রধান শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। বাংলাদেশের মানুষ শেখ হাসিনাকে নির্বাচিত করেছে। বিএনপি কালো পতাকা কাকে দেখাতে চায়? জনগণ আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে বিএনপিকে কালো পতাকা দেখিয়ে দিয়েছে। তাদের আন্দোলনে বিদেশিরা সাড়া দেয়নি। দেশের জনগণ তাদের কালো পতাকা দেখিয়েছে।

মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, নির্বাচন কোনো দল বয়কট করলে কিছু যায় আসে না। নির্বাচনে এই দেশের জনগণের অংশগ্রহণ বলে দেয় তাদের ষড়যন্ত্র বানচাল হয়ে গেছে। যতক্ষণ জনগণ থাকে ততক্ষণ বানচাল করার কোনো সুযোগ নেই। বাংলাদেশের মানুষ উন্নয়ন চায়, এই অপশক্তির বিলীন দেখতে চায়। সূত্র : বাসস

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে শরিকরা

জাতীয়, রাজনীতি, 4 December 2023, 453 Views,
ফাইল ছবি

অনলাইন ডেস্ক :

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোট। আজ ৪ ডিসেম্বর সোমবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে এ বৈঠকে বসেন জোটের নেতারা।

এতে সভাপতিত্ব করবেন জোটের প্রধান ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

জানা গেছে, আগামী ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোটগত নির্বাচন নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হবে হতে পারে। জোটের শরিকরা কয়টি আসনে প্রার্থী দিতে পারেন সেই বিষয়েও আলোচনা ও সিদ্ধান্ত হতে পারে বলে জানা গেছে।

বর্তমান অবস্থান থেকে সরকারের আর কিছু করার নেই

জাতীয়, রাজনীতি, 25 September 2023, 553 Views,
ফাইল ছবি

খালেদা জিয়ার বিদেশ যাওয়া প্রসঙ্গে আইনমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক :
আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার দণ্ড স্থগিত করে শর্তসাপেক্ষে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। এখন আইনের কোনো পরিবর্তন আনতে হলে, আগে শর্তযুক্ত মুক্তি বাতিল করতে হবে। তাকে বিদেশ পাঠানোর ব্যাপারে বর্তমানে আইনের অবস্থান থেকে সরকারের আর কিছু করার নাই।

আজ ২৫ সেপ্টেম্বর সোমবার সচিবালয়ে আইন মন্ত্রণালয়ের নিজ কার্যালয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে আলাপকালে এ সব কথা বলেন তিনি।

এর আগে আইনমন্ত্রীর সঙ্গে সচিবালয়ে সাক্ষাৎ করেন জাতিসংঘের মুক্তচিন্তা, মত প্রকাশের স্বাধীনতার বিকাশ ও সুরক্ষা বিষয়ক বিশেষ র‍্যাপোটিয়ার আইরিন খান।

আনিসুল হক বলেন, ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ (১) এর ক্ষমতাবলে শর্ত যুক্তভাবে সাজা স্থগিত রেখে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে এবং সেটা প্রধানমন্ত্রীর মহানুভবতায়। এখন আইনের যে পরিস্থিতি তাতে যদি কোনো পরিবর্তন আনতে হয় সেক্ষেত্রে খালেদা জিয়াকে আগে যে শর্তযুক্ত মুক্তি দেওয়া হয়েছে সেটাকে বাতিল করতে হবে। তার পরে অন্য বিবেচনা করা যাবে।

তিনি বলেন, আমি বলেছিলাম, উনাকে (খালেদা জিয়া) বিদেশে যাওয়ার আবেদনটা প্রথমে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে করতে হয়। সেই আবেদন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠায় এবং আইন মন্ত্রণালয়ের মতামতের ওপরই নির্ভর করে এই ব্যাপারটা। কারণ হচ্ছে এটা আইনের ব্যাপার।

আইনমন্ত্রী আরো বলেন, আইনের যে অবস্থান এখন, সেই অবস্থানে ইট ইজ অ্যা পাস্ট ট্রানজেকশন। আমার মনে হয়, আইনের সেই অবস্থান থেকে সরকারের আর কিছু করার নেই।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে আনিসুল হক বলেন, আমাদের (স্বরাষ্ট্র ও আইন মন্ত্রণালয়ের) মধ্যে কোনো ঠেলাঠেলি নেই। আমি পরিষ্কারভাবে আবারও বলছি, যদি কোনো আবেদন আসে; সেই আবেদন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মতামতের জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠাবে।

তিনি বলেন, আমাদের দেশে আইনের শাসন আছে। আমরা আদালতের রায়কে শ্রদ্ধা করি। খালেদা জিয়াকে আদালত শাস্তি দিয়েছেন। দ্বিতীয় কথা হচ্ছে, ৪০১ ধারায় উনাকে যে শর্তযুক্ত মুক্তি দেওয়া হয়েছে, সেটা সরকারের নির্বাহী আদেশে দেওয়া হয়েছে। তার শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করেই শর্তযুক্ত মুক্তি দেওয়া হয়। যা তিনি মেনেছেন।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে নেত্রকোনা জেলা আ.লীগ সভাপতি-সম্পাদকের সৌজন্য স্বাক্ষাত

রাজনীতি, 30 March 2023, 583 Views,

নেত্রকোনা প্রতিনিধি :
প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় গণভবনে ৩০ মার্চ বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য স্বাক্ষাত করেছেন জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক।

জানা গেছে, নেত্রকোনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট আমিরুল ইসলাম এবং জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক অ্যাডভোকেট শামছুর রহমান লিটন বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় গনভবনে জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য স্বাক্ষাত করেন।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক অ্যাডভোকেট শামছুর রহমান লিটন বলেন, বিশ্বমানবতার নেত্রী প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা চতুর্থবার মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হবেন। আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামীলীগ বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়ে চতুর্থবারের মত সরকার গঠন করবে। জননেত্রী শেখ হাসিনাকে আগামী নির্বাচনে জেলার ৫টি আসনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীদের বিশাল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী করা হবে বলে আমরা অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছি।